Bengali govt jobs   »   Article   »   Geology of West Bengal

Geology of West Bengal, Study material for WBCS and other state examinations | পশ্চিমবঙ্গের ভূ-প্রকৃতি, WBCS এবং অন্যান্য রাজ্য পরীক্ষার জন্য স্টাডি মেটিরিয়াল

Geology of West Bengal: In this article we have provided  Geology Of West Bengal . You will also learn about  types of Geological Structure of  West Bengal.

Geology Of West Bengal
Name Geology Of West Bengal
Category Study Material
Exam West Bengal Civil Service (WBCS) and Other State Exams

Geology Of West Bengal | পশ্চিমবঙ্গের ভূপ্রকৃতি

Geology Of West Bengal : ভূপ্রকৃতিগত সব ধরনের বৈচিত্র্য (একমাত্র মরু অঞ্চল ছাড়া) পশ্চিমবঙ্গে দেখা যায় । ভূপ্রাকৃতিক বৈচিত্র্য ও ভূমির গঠন অনুসারে পশ্চিমবঙ্গকে তিনটি ভূপ্রাকৃতিক অঞ্চলে ভাগ করা যায়, যথা —

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_40.1
Geology Of West Bengal

(ক) উত্তরের পার্বত্য অঞ্চল,

(খ) পশ্চিমের উচ্চভূমি ও মালভূমি অঞ্চল,

(গ) গঙ্গার বদ্বীপসহ সমভূমি অঞ্চল

() উত্তরের পার্বত্য অঞ্চল(Northern Highlands) :-

অবস্থান :- পশ্চিমবঙ্গের উত্তরদিকে পৃথিবীর উচ্চতম পর্বতমালা হিমালয় অবস্থান করছে । সুউচ্চ হিমালয় পর্বতমালার অংশ বিশেষ পর্বতময় এই অঞ্চলটি পশ্চিমবঙ্গের উত্তর-পশ্চিম সিমান্তে পূর্ব হিমালয় পর্বতশ্রেণির উপর অবস্থিত । একমাত্র শিলিগুড়ি মহকুমা বাদে পুরো দার্জিলিং এবং জলপাইগুড়ি জেলার উত্তর-পূর্বের সামান্য কিছু অংশ এই অঞ্চলের অন্তর্গত ।

ভূপ্রকৃতি :- এই পার্বত্যভূমি তরাই-এর সমভূমি থেকে ৩০০ মিটার সমোন্নতি রেখা বরাবর হঠাৎ খাড়াভাবে উপরে উঠে গিয়েছে (সমান উচ্চতাযুক্ত অঞ্চলকে যে রেখা দিয়ে যুক্ত করা হয়, তাকে সমোন্নতি রেখা বলা হয়)।

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_50.1
Northern Highlands

প্রধানত পাললিক ও রূপান্তরিত শিলা দিয়ে গঠিত এই অঞ্চলটির ভূপ্রকৃতি অত্যন্ত বন্ধুর । এবড়ো-খেবড়ো পার্বত্যভূমি, পাহাড়ের খাঁড়া ঢাল, গভীর গিরিখাত এবং ছুরির ফলার মতো পর্বতশিরা এই অঞ্চলের প্রধান ভুপ্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য ।

হিমালয় পর্বতের কয়েকটি গিরিশ্রেণি এবং উপত্যকা নিয়ে গঠিত এই অঞ্চলটি দক্ষিণ থেকে উত্তর দিকের ক্রমশ উঁচু হয়ে গেছে । তিস্তা নদী সিকিম থেকে এই অঞ্চলে প্রবেশ করে সুগভীর গিরিখাত দ্বারা এই অঞ্চলটিকে দু’ভাগে ভাগ করেছে, যেমন— (১) তিস্তার পশ্চিমদিকের পার্বত্য অঞ্চল এবং (২) তিস্তার পূর্ব দিকের পার্বত্য অঞ্চল । তিস্তার পশ্চিম দিকের পার্বত্য অঞ্চলটি পূর্ব দিকের পার্বত্য অঞ্চলের তুলনায় উঁচু ।

(১) তিস্তা নদীর পশ্চিম দিকের পার্বত্য অঞ্চল :- তিস্তা নদীর পশ্চিম দিকের পার্বত্য অঞ্চলে দুইটি পর্বতশিরা দেখা যায়, এরা হল সিংগালীলা এবং দার্জিলিং-মহালধিরাম শৈলশিরা । সিংগালিলা শৈলশিরা নেপাল ও দার্জিলিং সিমান্তে অবস্থিত থেকে পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং জেলাকে নেপাল থেকে বিচ্ছিন্ন করেছে । সিংগালিলার চারটি উল্লেখযোগ্য পর্বতশৃঙ্গ হল ফালুট,সান্দাকফু,টংলু ও সবরগ্রাম। ফালুট পর্বতশৃঙ্গের উচ্চতা ৩,৫৯৫ মি. , সান্দাকফু পর্বতশৃঙ্গের উচ্চতা ৩,৬৩০ মি., টংলু পর্বতশৃঙ্গের উচ্চতা ৩,০৩৬ মি., ও সবরগ্রাম পর্বতশৃঙ্গের উচ্চতা ৩,৫৪৩ মি. । সান্দাকফু পশ্চিমবঙ্গের উচ্চতম শৃঙ্গ । দার্জিলিং-কার্শিয়াং পর্বতমালার উল্লেখযোগ্য শৃঙ্গ হল টাইগার হিল। টাইগার হিলের উচ্চতা ২,৫৬৭মি. ।

(২) তিস্তা নদীর পূর্ব দিকের পার্বত্য অঞ্চল :- তিস্তার পূর্বদিকে রয়েছে দুরবিনদারা পর্বত । এই পর্বতটি কালিম্পং শহর এর ঢালে অবস্থিত । কালিম্পং থেকে দুরবিনদারা পর্বতটি ক্রমশ নীচু হয়ে পূর্বদিকে জলঢাকা নদীর উপত্যকার দিকে এগিয়ে গেছে । এই অঞ্চলে দার্জিলিং হিমালয়ের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ ঋষিলা অবস্থিত । ঋষিলা শৃঙ্গের উচ্চতা ৩,১৩০ মি. । ঋষিলা শৃঙ্গের আরও পূর্বদিকে জলপাইগুড়ি জেলার উত্তর অংশে ডলোমাইট শিলায় গঠিত নাতিউচ্চ বস্কা-জয়ন্তী পাহাড় অবস্থিত । এই অঞ্চলটি অত্যাধিক বৃষ্টিপাতের ফলে ক্রমশ ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে বিচ্ছিন্ন পাহাড়ে পরিণত হয়েছে ।

পশ্চিমবঙ্গের উল্লেখযোগ্য পর্বতশৃঙ্গ সমূহ

 

পর্বতশৃঙ্গ

উচ্চতা (ফুট) উচ্চতা (মিটার)
সান্দাকফু ৩৬৩৬ ১১৯২৯
ফালুট ৩৬০০ ১১৮১১
সাবারগ্রাম ৩৫৪৩ ১১৬২৪
রাচেলা ডান্ডা ৩১৭০ ১০৪০০
টংলু ৩০৩৬ ৯৯৬০
টাইগার হিল ২৬০০ ৮৫৩০
ঘুম হিল ২৪০০ ৭৮৭০
ডেলো হিল ১৭০৪ ৫৫৯০
বক্সা হিল ১৪০০ ৪৫৯৩
দুরপিন হিল ১৩৭২ ৪৫০১
গোর্গাবুরু ৮৫৫ ২৮০৫

পশ্চিমবঙ্গের উল্লেখযোগ্য পর্বত সমূহ

পর্বত উচ্চতম চূড়া উচ্চতা (মিটার) পর্বত মালা জেলা
সিংগালীলা পর্বতশ্রেণী সান্দাকফু ৩৬৩৬ হিমালয় দার্জিলিং
দার্জিলিং-কার্শিয়াং রেঞ্জ টাইগার হিল ২৬০০ হিমালয় দার্জিলিং
চোলা রেঞ্জ ডেলো হিল ১৭০৪ হিমালয় দার্জিলিং
বক্সা-জয়ন্তী রেঞ্জ বক্সা হিল ১৪০০ হিমালয় আলিপুরদুয়ার

() পশ্চিমের উচ্চভূমি ও মালভূমি অঞ্চল (Western Highlands and Plateaus):-

অবস্থান :- পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম অংশে অবস্থিত এই ঢেউখেলানো উঁচুভুমি ও মালভুমি অঞ্চলটি সমগ্র পুরুলিয়া জেলা এবং বাঁকুড়া, বীরভূম, বর্ধমান ও মেদিনীপুর জেলার পশ্চিমদিকের ৫০ মিটারের বেশি উচ্চতাযুক্ত অঞ্চল নিয়ে গঠিত হয়েছে । গ্রানাইট ও নাইস শিলা দ্বারা গঠিত এই উচ্চভূমি অঞ্চলটি হল ছোটনাগপুর মালভূমির অংশ বিশেষ । ভূ-তাত্ত্বিক গঠন অনুসারে এই অঞ্চলটি পশ্চিমবঙ্গের স

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_60.1
Highlands and plateaus to the west

বচেয়ে প্রাচীন অঞ্চল। প্রাচীন আগ্নেয় ও পাললিক শিলা দিয়ে এই মালভূমি অঞ্চল গঠিত। এটি ছোটনাগপুর মালভূমির পূর্ব প্রান্তের ভগ্ন ঢালু অংশ। ইহা পশ্চিম থেকে পূর্বে ঢালু।

ভূপ্রকৃতি :- সমগ্র উচ্চভূমি অঞ্চলটি দক্ষিণে বরাভূম উচ্চভূমি, পশ্চিমে পুরুলিয়া উচ্চভূমি এবং উত্তর-পূর্বে শুশুনিয়া উচ্চভূমিতে বিভক্ত হয়ে পড়েছে । সুবর্ণরেখা, কংসাবতী, দ্বারকেশ্বর, কোপাই, অজয়, দামোদর প্রভৃতি নদীগুলির ক্ষয় কাজের ফলে ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের এই উচ্চভূমি অঞ্চলটি সমপ্রায় ভূমিতে পরিণত হয়েছে এবং অপেক্ষাকৃত কঠিন শিলা দ্বারা গঠিত এই উচ্চভূমির বাকি অংশগুলো এখানে সেখানে টিলার মতো ছোট ছোট পাহাড়ের আকারে দঁড়িয়ে আছে । এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পাহাড় হল পুরুলিয়া জেলার অযোধ্যা,বাঘমুন্ডি ও পাঞ্চেৎ, বাঁকুড়া জেলার বিহারীনাথ ও শুশুনিয়া, বীরভূমের মামাভাগ্নে পাহাড় প্রভৃতি । অযোধ্যা পাহাড়ের গোগরাবুরু পশ্চিমবঙ্গের মালভূমি অঞ্চলের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ । গোগরাবুরু শৃঙ্গের উচ্চতা ৬৭৭ মি. ।

বীরভূম জেলার বক্রেশ্বরে উষ্ণপ্রস্রবণ আছে। এছাড়া এই জেলার খয়রাশোল ও মহম্মদবাজার থানা অঞ্চলে কতকগুলি আর্টেজীয় কূপ আছে। অযোধ্যা পাহাড়ে ব্রাহ্মণী ও টূর্গা নামে দুটি জলপ্রপাত আছে। সীতাকুণ্ড নামে একটি আর্টেজীয় কূপ আছে।

পশ্চিমবঙ্গের উল্লেখযোগ্য পাহাড় সমূহ

পাহাড় অবস্থান
১) অযোধ্যা (৬৭৭মি) পুরুলিয়া
২) বাঘমুন্ডি পুরুলিয়া
৩) পাঞ্ছেত (৬৪৩মি) পুরুলিয়া
৪) ভান্ডারি পুরুলিয়া
৫) পরশ পুরুলিয়া
৬) রঘুনাথপুর পুরুলিয়া
৭) জয়চন্ডি পুরুলিয়া
৮) গুরুমা পুরুলিয়া

Click This Link For All the Latest Job Alerts

পাহাড় অবস্থান
৯) মামা-ভাগ্নে বীরভূম
১০) মথুরখালি বীরভূম
১১) শুশুনিয়া (৪৪২মি) বীরভূম
১২) বিহারীনাথ (৪৩৫মি) বীরভূম
১৩) মশক বীরভূম
১৪) কোড়ো বীরভূম
১৫) বেল পাহাড়ী পশ্চিম মেদিনীপুর
১৬) ঠাকুরান পশ্চিম মেদিনীপুর

() গঙ্গার বদ্বীপসহ সমভূমি অঞ্চল(Gangetic deltaic plains) :-

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_70.1
Gangetic deltaic plains

উত্তরের পার্বত্য অঞ্চল এবং পশ্চিমের মালভূমি অঞ্চলকে বাদ দিলে পশ্চিমবঙ্গের অধিকাংশ স্থানই বৈচিত্র্যহীন সমভূমি। পশ্চিমবঙ্গের এই অঞ্চলটি নদীবাহিত পলি সঞ্চয়ের ফলে গড়ে উঠেছে। ভূপ্রকৃতি ও মৃত্তিকার পার্থক্যের জন্য পশ্চিমবঙ্গের সমগ্র সমভূমি অঞ্চলকে ছয়ভাগে ভাগ করা যায়, যেমন— (১) তরাই ও ডুয়ার্স অঞ্চল, (২) উত্তরের সমভূমি অঞ্চল, (৩) রাঢ় অঞ্চল, (৪) উপকূলের বালুকাময় সমভূমি (৫) গঙ্গার বদ্বীপ অঞ্চল ও (৬) সুন্দরবন অঞ্চল।

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_80.1

 (১) তরাই ও ডুয়ার্স অঞ্চল :-

তরাই (কথাটির অর্থ আর্দ্র অঞ্চল) হিমালয়ের পাদদেশ থেকে দক্ষিণে ৩৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃ

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_90.1
Tarai and Doars region

ত জলাভূমিময় তৃণভূমি, সাভানা ও বনভূমির একটি অঞ্চল। পশ্চিমবঙ্গের পার্বত্য অঞ্চলের দক্ষিণে দার্জিলিং জেলার শিলিগুড়ি মহকুমা এবং জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার জেলার উত্তরাংশে নদীবাহিত বালি ও নুড়ি জমে তরাই অঞ্চলটির সৃষ্টি হয়েছে। এই অঞ্চলটি উত্তর থেকে দক্ষিণে ঢালু হয়ে গিয়েছে। অসংখ্য নদীখাত তরাই অঞ্চলটিকে বিভিন্ন সমান্তরাল অংশে বিভক্ত করেছে। এই অঞ্চলের অধিবাসীদের কাছে তিস্তা নদীর ডানদিকের অংশ তরাই এবং বাঁদিকের অংশ ডুয়ার্স নামে পরিচিত। ডুয়ার্স হল পাহাড় ও সমভূমির মিলনস্থল। তরাই অঞ্চলের উত্তরে অবস্থিত হিমালয়ের পাথর, নুড়ি আর ক্ষয়প্রাপ্ত মাটিতে তৈরি বনময় ভাবর অঞ্চল। তরাই অঞ্চলের মাটিতে কাদা ও বালির পর্যায়ক্রমিক স্তর দেখা যায়। এখানকার ভৌমজলপৃষ্ঠ (ওয়াটার টেবিল) উচ্চ হওয়ায় অনেক ঝোরা ও জলভূমি দেখা যায়। তরাই অঞ্চলের নদীগুলিতে বর্ষাকালে দুকূল ছাপিয়ে বন্যা হয়। তরাই-ডুয়ার্স সাভানা ও তৃণভূমি একটি বাস্তু-অঞ্চল (ইকোরিজিয়ন)। এই অঞ্চলটি গোটা তরাই অঞ্চলের মধ্যভাগ জুড়ে অবস্থিত। এইখানে লম্বা লম্বা ঘাসের তৃণভূমি, সাভানা এবং চিরহরিৎ ও পর্ণমোচী বনভূমি দেখা যায়। ভূমিভাগের সাধারণ উচ্চতা ৮০-১০০ মিটার। তিস্তা, তোর্সা, রায়ডাক, জলঢাকা, সঙ্কোশ প্রভৃতি বড় এবং একাধিক ছোট নদীর বয়ে আনা বালি, নুড়ি ও পাথরে গড়ে উঠেছে তরাই। সমগ্র ডুয়ার্সকে সংকোশ নদীর প্রবাহ পথের বিচারে দুই ভাগে ভাগ করা যায় –

 

(i) পূর্ব ডুয়ার্স বা অসম ডুয়ার্স   সংকোশ নদীর পূর্ব অংশ (ধুবড়ি, কোকড়াঝাড়, বরপেটা, গোয়ালপাড়া ও বঙাইগাঁও জেলার অংশবিশেষ)

(ii) পশ্চিম ডুয়ার্স বা পশ্চিমবঙ্গ ডুয়ার্স   সংকোশ নদীর পূর্ব অংশ (দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহার জেলার অংশবিশেষ)

(২) উত্তরের সমভূমি অঞ্চল :-

পশ্চিমবঙ্গের উত্তরের পার্বত্য অঞ্চলের দক্ষিণে, তরাই ও গঙ্গার মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত। জলপাইগুড়ি জেলার দক্ষিণাঞ্চল, উত্তর দিনাজপুর জেলা (উত্তরের কয়েকটি অংশ বাদে), দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা, মালদহ জেলা ও কোচবিহার জেলার দক্ষিণাঞ্চল নিয়ে এই সমভূমি গঠিত। উত্তর দিনাজপুরের যে সংকীর্ণ ভূখণ্ডটি মালদহ ও দক্ষিণ দিনাজপুরের সঙ্গে দার্জিলিং ও জলপাইগুড়ি জেলার সংযোগ রক্ষা করছে তার নাম মহানন্দা করিডোর। উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুরের সমস্ত অঞ্চলই পলল সমভূমি। তিস্তা, তোর্সা, মহানন্দা প্রভৃতি নদীর পলি জমে এই অঞ্চলটি গড়ে উঠেছে। মোটামুটিভাবে সমতল হলেও মাঝে মাঝে এখানে সেখানে খাল-বিল এবং উঁচু-নিচু জমি চোখে পড়ে। এখানে কোনও কোনও স্থানে ৩০ মিটার পর্যন্ত উঁচু ঢিবি দেখা যায়।

ভুপ্রকৃতিগত ভাবে উত্তরের সমভূমি অঞ্চলকে তাল, বরেন্দ্রভূমি ও দিয়ারা এই তিনটি অংশে ভাগ করা যায়। মহানন্দা নদী মালদহ জেলাকে দুই ভাগে ভাগ করেছে। পূর্বাংশটি প্লাবন সমভূমি। এটি পুরনো পলিমাটিতে গঠিত। এখানে কয়েকটি টিলাও দেখা যায়। এই অঞ্চলটি বরেন্দ্রভূমি নামে পরিচিত এবং এটি গাঙ্গেয় বদ্বীপ অঞ্চলের অংশ। পশ্চিমাংশটি নতুন পলিমাটিতে গঠিত। এই অংশে কালিন্দী নদী মহানন্দা নদীতে মিশেছে। মালদহের কালিন্দী নদীর উত্তরে অবস্থিত ভূমিভাগ তাল নামে পরিচিত। তাল কথার অর্থ হল হ্রদ বা জলাভূমি । এটি একটি নিম্নভূমি। এখানে অনেক জলা ও বিল দেখা যায়। কালিন্দী নদীর দক্ষিণে অবস্থিত উর্বর অংশটির নাম দিয়ারা। জলপাইগুড়ি ও কোচবিহার জেলার দক্ষিণাঞ্চলও নতুন পলিমাটি এবং তিস্তা, তোর্সা, রায়ডাক, জলঢাকা, সঙ্কোশ, বালাসোন, পুনর্ভবা, আত্রেয়ী ও অন্যান্য ছোট নদীগুলির জমা করা নুড়িপাথরে তৈরি হয়েছে।

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_100.1

বরেন্দ্রভূমি ও দিয়ারার মধ্যে পার্থক্য নিন্মে আলোচনা করা হল –

বিষয় বরেন্দ্রভূমি দিয়ারা
সংজ্ঞা মহানন্দা নদীর পূর্বদিকের প্রাচীন সমভূমিকে বরেন্দ্রভূমি বলে । মালদহ জেলার নবীন পলিযুক্ত মৃত্তিকা অঞ্চলকে দিয়ারা বলে ।
অবস্থান মহানন্দা নদীর বামতীরে মালদহ ও দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার পূর্বাংশে অবস্থিত । মালদহ জেলার কালিন্দি নদীর দক্ষিনাংশে নবীন পলি হিসাবে অবস্থিত ।
উর্বরতা মৃত্তিকা অনুর্বর হয়ে পরে । মৃত্তিকা উর্বর ও সমৃদ্ধ ।
ভূপ্রকৃতি মাঝে মাঝে উঁচু ঢিবি দেখা যায় । প্রধানত সমতল প্রকৃতির ।

(৩) রাঢ় অঞ্চল :-

পশ্চিমের মালভূমির পূর্ব সীমা থেকে ভাগীরথী-হুগলী নদীর পশ্চিম তীর পর্যন্ত সামান্য ঢেউ খেলানো ও পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে ঢালু হয়ে যাওয়া বিস্তীর্ণ সমভূমি অঞ্চলটি রাঢ় সমভূমি নামে পরিচিত। রাঢ় অঞ্চলের গড় উচ্চতা ৩০-৫০ মিটার । পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, বর্ধমান এবং বীরভূম জেলার পূর্বাংশ রাঢ় অঞ্চলের অন্তর্গত। পুরানো পলিমাটি দিয়ে গঠিত এই অঞ্চলটির মাটির রঙ লাল। এখানকার মাটি ল্যাটেরাইট প্রকৃতির। তাই এই মাটির রং লাল। এখানকার জমির স্বাভাবিক ঢাল পশ্চিম থেকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে। অজয়, দামোদর, ময়ূরাক্ষী, শিলাবতী, কংসাবতী, বক্রেশ্বর প্রভৃতি হল রাঢ় অঞ্চলের প্রধান নদী। এই অঞ্চলটি কৃষিকাজে অত্যন্ত উন্নত। এই অঞ্চলকে জেলা ও মধ্যবর্তী দোয়াব হিসাবে চার ভাগে ভাগ করা যায় । যেমন –

(i) মুর্শিদাবাদ রাঢ়  (ii) বীরভূম-বর্ধমান রাঢ়  (iii) বাঁকুড়া রাঢ়  (iv) মেদিনীপুর রাঢ়

(৪) উপকূলের বালুকাময় সমভূমি :-

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার উপকূল ভাগ এই অঞ্চলের অন্তর্গত। সর্বদক্ষিণের উপকূলবর্তী তটভূমি বালুকাময়। এখানকার তটভূমির ঢাল খুবই কম। এখানে বিভিন্ন স্থানে বালিয়াড়ি দেখা যায়। তটভূমির উত্তর দিকের বালিয়াড়িগুলি সমুদ্র উপকূলের সমান্তরালভাবে পূর্ব-পশ্চিমে বিস্তৃত। দুটি বালিয়াড়ির মাঝের নিচু অংশে জলাভূমি দেখা যায়। এই সমভূমি নদীপ্রবাহ ও বায়ুপ্রবাহের দ্বারা বাহিত বালি ও কাদায় গঠিত। উপকূল অঞ্চলের সমান্তরালে বালিয়াড়ি ও জলাভূমি দেখা যায়। দিঘা বালিয়াড়ি বঙ্গোপসাগরের সবচেয়ে কাছে এবং কাঁথি বালিয়াড়ি সবচেয়ে দূরে অবস্থিত। কোথাও কোথাও সমুদ্র থেকে বালিয়াড়িগুলির দূরত্ব ১৫-১৬ কিলোমিটার এবং উচ্চতা ১১-১২ মিটার।

Read Also: Rivers System in West Bengal 

 (৫) গঙ্গার বদ্বীপ অঞ্চল :-

এই বদ্বীপ অঞ্চলটি পূর্বদিকে বাংলাদেশের সীমান্ত থেকে পশ্চিমে কান্দি মহকুমা বাদে সমগ্র মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, হাওড়া, হুগলী, কলকাতা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলা এবং বর্ধমান ও পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পূর্বাংশের ৫০ মিটার সমোন্নতি রেখা বরাবর বিস্তৃত। এই অঞ্চলের উত্তরে পদ্মা নদী এবং দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর উপস্থিত। সমগ্র অঞ্চলটি সমতল হলেও উত্তর থেকে দক্ষিণে ক্রমশ ঢালু হয়ে গিয়েছে। এই অঞ্চল পৃথিবীর বৃহত্তম বদ্বীপের একটি অংশ। গঙ্গা বা পদ্মা, ময়ূরাক্ষী, অজয়, দামোদর, দ্বারকেশ্বর, রূপনারায়ণ, কাঁসাই প্রভৃতি নদনদী বাহিত পলি সঞ্চয়ের ফলে কালক্রমে সমুদ্রবক্ষ থেকে এই নতুন ভূভাগ বা বদ্বীপের সৃষ্টি হয়েছে।

 (৬) সুন্দরবন অঞ্চল :-

দক্ষিণ ২৪ পরগনার দক্ষিণাংশ এবং উত্তর ২৪ পরগনার দক্ষিণ পূর্বাংশ এই অঞ্চলের অন্তর্গত। এই অঞ্চলটি পুরোপুরিভাবে সক্রিয় বদ্বীপ অঞ্চলের অন্তর্গত, তাই এখানে বদ্বীপ গঠনের কাজ এখনোও চলছে। সুন্দরবনের নদীগর্ভ ছাড়া সমস্ত অংশই সমতল। সমুদ্রতল থেকে এই অঞ্চলের গড় উচ্চতা মাত্র ৩-৪ মিটার হওয়ায় এর অনেকটাই সমুদ্রজলের জোয়ারে ঢেকে যায়। সুন্দরবন অঞ্চলটি পশ্চিমবঙ্গের ১০২ টি ছোটো দ্বীপ নিয়ে গঠিত। ৪৮ টি দ্বীপ এ মানুষ এর বসতি রয়েছে। এই অঞ্চল এর মাটি লবনাক্ত ও কাদা প্রকৃতির। এই অঞ্চলে শ্বাসমূল ও ঠেসমূলযুক্ত ম্যানগ্রোভ অরণ্য গড়ে উঠেছে। সুন্দরী গাছের উপস্থিতির কারণে সুন্দরবন নামকরণ হয়েছে।মাটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০-৪০ মিটার উঁচুতে অবস্থিত। এই অঞ্চলে গঙ্গা প্রধান নদী হলেও অসংখ্য নদী আছে যেমন কালিন্দী,রায়মঙ্গল, মাতলা, বিদ্যাধরী ইত্যাদি। এছাড়া বিশ্ব বিখ্যাত রয়াল বেঙ্গল টাইগার এই অঞ্চলের ই সম্পদ।

গঙ্গার বদ্বীপ অঞ্চলকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়, যেমন— (১) মুমূর্ষ বদ্বীপ, (২) পরিণত বদ্বীপ ও (৩) সক্রিয় বদ্বীপ।

(১) মৃতপ্রায় বা মুমূর্ষ বদ্বীপ :- নদীয়া ও মুর্শিদাবাদ জেলার এই বদ্বীপ অংশে নদীগুলো গঙ্গা বা পদ্মা থেকে বিছিন্ন হয়ে মৃতপ্রায় হওয়ায় এই অঞ্চলের বদ্বীপ গঠন আর সম্ভব নয়। এই অঞ্চলকে বাগড়ি অঞ্চল বলা হয় । এখানে তাই প্রচুর বিল, জলাভূমি ও অশ্বখুরাকৃতি হ্রদ দেখা যায়।

(২) পরিণত বদ্বীপ :- ছোটনাগপুরের মালভূমি থেকে নদীবাহিত প্রচুর বালি, কাঁকর, পলি প্রভৃতি জমে বর্ধমান, পূর্ব মেদিনীপুর, হাওড়া ও হুগলী জেলায় এই বদ্বীপ অঞ্চলের গঠন প্রায় শেষ হয়েছে। তাই এখানে জলাভূমির সংখ্যা অনেক কম এবং মৃত্তিকাও বেশ কঠিন।

(৩) সক্রিয় বদ্বীপ :- উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা এবং কলকাতা জেলার দক্ষিণে অবস্থিত সুন্দরবন অঞ্চলে নদী ও সমুদ্র বাহিত পলি দিয়ে বদ্বীপ গঠনের কাজ আজও চলছে। সমুদ্রের জোয়ারের প্রভাবে এখানকার মৃত্তিকা কিছুটা লবণাক্ত।

FAQ: Geology Of West Bengal | পশ্চিমবঙ্গের ভূ-প্রকৃতি 

Q. বাংলার অববাহিকা কবে গঠিত হয়?

Ans. এই অববাহিকাটি দেশের তিনটি টেকটোনিক বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিনিধিত্ব করে। গভীর অববাহিকা গঠন শুরু হয় যখন লেট ক্রিটেসিয়াস অরোজেনি বাংলাদেশের পূর্ব সীমান্তে আরাকান ইয়োমা পর্বতমালার উত্থান ঘটায় এবং আসাম উপসাগর গঠন করে।

Q. বঙ্গ অববাহিকা কোথায় অবস্থিত?

Ans. ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর-পূর্ব অংশের বেঙ্গল অববাহিকা, পশ্চিম ও উত্তরে ভারতীয় ঢাল এবং পূর্বে ইন্দো-বর্মন রেঞ্জের মধ্যে, বাংলাদেশ, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরা রাজ্যের কিছু অংশ এবং বঙ্গোপসাগরকে জুড়ে রয়েছে।

 

West Bengal Static GK Practice Set-1 Official Language Act PDF Download
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর তালিকা WBCS পরীক্ষার তারিখ 2022
West Bengal Government Job West Bengal National Parks and Wildlife Sanctuaries
পশ্চিমবঙ্গের লোকনৃত্য

 

International Airport in West Bengal

Geology of West Bengal: Study material for WBCS and other state examinations_110.1

Adda247 ইউটিউব চ্যানেল – Adda247 Youtube Channel

Adda247 টেলিগ্রাম চ্যানেল – Adda247 Telegram Channel

 

Sharing is caring!

Congratulations!

মার্চ 2022 | মাসিক কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পিডিএফ

Download your free content now!

We have already received your details.

Please click download to receive Adda247's premium content on your email ID

Incorrect details? Fill the form again here

মার্চ 2022 | মাসিক কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পিডিএফ

Thank You, Your details have been submitted we will get back to you.